বিএনপির দায়িত্ব ড. কামালের, লোক দেখানো পদে আছে মির্জা ফখরুল!

0
88

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শোচনীয় পরাজয়ের পর বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের ওপর থেকে ভরসা হারিয়ে ফেলেছে কেন্দ্রীয় কমিটিসহ তৃণমূল বিএনপি নেতারা। যার কারণে বিএনপির অনেক নেতাই এখন মির্জা ফখরুলকে মেনে নিতে পারছেন না। ফলে দলীয় চাপা ক্ষোভের কারণে মহাসচিব পদ থেকে সরিয়ে দেয়ার উপক্রম হয়েছে। কিন্তু সাংগঠনিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে বিএনপির দায়িত্ব ড.কামালকে দিয়ে লোক দেখানো পদে রাখা হবে মির্জা ফখরুলকে। বিএনপির নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের একজন নেতার মারফত এমন পরিকল্পনা সম্বন্ধে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই নেতা বলেন, দলের বর্তমান অবস্থার কথা বিবেচনা করে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমান। তারেক রহমান চাইছেন না মির্জা ফখরুল মহাসচিব পদে থাকুক। কিন্তু মহাসচিব পদ থেকে সরে গেলে সমালোচনায় পড়তে হবে গোটা বিএনপিকে। যার কারণে সিদ্ধান্ত এসেছে- মহাসচিবের ক্ষমতাবলে চলবেন ড. কামাল হোসেন। দলের অভ্যন্তরের সবাই জানবে বিএনপির মহাসচিব ড. কামাল হোসেন। তবে সাধারণ মানুষ জানবেন মহাসচিব মির্জা ফখরুল। এতে করে দলকে কোনো সমালোচনার মুখেও পড়তে হবে না। আর দলের গঠনতন্ত্রে পরিবর্তন এলে ড. কামালের নেতৃত্বে বিএনপির জন্য ভালো কিছুও হতে পারে।

এদিকে, বিষয়টি সম্পর্কে সিনিয়র নেতা ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ রাখঢাক না রেখে বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি নিশ্চিত করার জন্য তারেক রহমান বিএনপির কর্তৃত্ব ও পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ ড. কামালের হাতে ন্যস্ত করেছেন। আর তারেক রহমানের কাছে বিএনপির কর্তৃত্বের বিষয়ে শতভাগ নিশ্চিত হবার পর ২২ ফেব্রুয়ারি ঐক্যফ্রন্টের গণশুনানিতে সমাপনী বক্তব্যে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিও জানিয়েছিলেন ড. কামাল হোসেন। এছাড়া বিএনপি মহাসচিব হিসেবে বর্তমানে সবচেয়ে যোগ্য ব্যক্তিই হচ্ছেন ড. কামাল।

এ বিষয়ে বিএনপির নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের এক নেতা জানান, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন চিকিৎসার জন্য গত ১৯ জানুয়ারি রাতে সিঙ্গাপুরে যান। সেখান থেকে তিনি অতি-গোপনীয়তা রক্ষা করে লন্ডনে গিয়ে তারেক রহমানের সাথে একান্ত বৈঠকে মিলিত হন। দেশের রাজনীতিতে বিএনপির পূর্ণ কর্তৃত্ব পেলে খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে ড. কামাল মাঠে নামবেন বলে বৈঠকে শর্ত জুড়ে দেন। আর এই কারণেই বর্তমান বিএনপিতে মির্জা ফখরুলের কোনো ক্ষমতা নেই।

এদিকে ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে কথা হলে তিনি জানান, বিএনপির সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে খুব শিগগিরই একসঙ্গে বসবেন। এরপর বিএনপি যেন সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী হয়ে ওঠে সে বিষয়টি তিনি দেখবেন। সঙ্গে আগামীতে বিএনপি কোন পথে হাঁটবে তারও নির্দেশনা দেবেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here