সন্ত্রাসী হামলায় পা হারাতে বসেছেন ইউপি সদস্য

0
50

স্টাফ রিপোর্টার:
কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার ভাঙামোড় ইউনিয়নে সন্ত্রাসী হামলায় দু’পা হারাতে বসেছেন ইউপি সদস্য শহিদুল ইসলাম। হাতুড়ি আর লোহার রড দিয়ে তার দু’পায়ের গিড়া থেকে উরু পর্যন্ত এলোপাথারী মারপিট করা হয়। এতে ডান পায়ের ৩টি স্থানে হাড় ভেঙে গেছে। বাম পায়েরও প্যাটেলা ভেঙে গেছে। পায়ে রয়েছে অসংখ্য ছুরিকাঘাতের চিহৃ। গুরুত্বর অবস্থায় তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, একাধিকবার অস্ত্রোপচারের পরেও পা স্বাভাবিক হবে কীনা নিশ্চিয়তা নেই শহিদুলের।
শহিদুল জানান, খোঁচাবাড়ি মৌজার ইসলাম গাড়িয়ালের বাড়ি থেকে লক্ষিকান্ত মৌজার জামাল উদ্দিনের বাড়ি পর্যন্ত কাবিখা প্রকল্পের আওতায় রাস্তা মেরামতের কাজ চলছিলো। এই প্রকল্পে ১১ মে. টন চাল বরাদ্দ আছে। ওই এলাকার জামাল উদ্দিনের নেতৃত্বে একটি দল এই প্রকল্প থেকে এক লাখ টাকা চাঁদা দাবী করে। চাঁদা দিতে অস্বীকার করায় গত ১২ এপ্রিল রাত ১১টার দিকে কুড়িগ্রাম থেকে বাড়ি ফেরার পথে সন্ত্রাসী তার উপর হামলা চালায়। হাতুড়ি, রড, ছুরি ও লাঠিসহ বিভিন্ন অস্ত্রের সাহায্যে তার পা দু’টিতে নৃসংশ কায়দায় আঘাত করে চলে যায় সন্ত্রাসীরা। গ্রামবাসীরা তাকে উদ্ধার করে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। সেখানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন তিনি।
শহিদুলের ভাই সেকেন্দার আলী জানান, ছুরির আঘাতে তার পা ক্ষতবিক্ষত হওয়ায় মাংসে পঁচন ধরেছে। তাই অস্ত্রোপচারে বিলম্ব হচ্ছে। তাছাড়া তিন দফা অস্ত্রোপচার করেও তার পা অক্ষত থাকবে কীনা তার নিশ্চয়তা দিতে পাচ্ছেন না চিকিৎসকরা।
তিনি আরো জানান, সন্ত্রাসী জামাল উদ্দিনের বিরুদ্ধে একটি এসিড নিক্ষেপের মামলায় ৭ বছরের সাজা হয়েছে। বর্তমানে তার বিরুদ্ধে ১২টি মামলা চলমান রয়েছে। এলাকায় তার একটি দুধর্ষ সন্ত্রাসী বাহিনী আছে। এই বাহিনী একের পর এক সন্ত্রাসী কার্যকলাপ চালিয়ে গেলেও পুলিশ তাদের নিয়ন্ত্রণ করতে পারছেনা।
ফুলবাড়ী থানার ওসি খন্দকার ফুয়াদ রুহানী জানান, এ ব্যাপারে ফুলবাড়ী থানায় ১৪ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। আসামীদের কয়েকজন জামিন নিয়েছেন। কয়েকজন পলাতক রয়েছে। তাদেরকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here