ফুলবাড়ীতে ভাঙ্গন আতঙ্কে ধরলা পাড়রে মানুষ

0
140

রবিউল ইসলাম বেলাল, ফুলবাড়ী:
এখন পর্যন্ত হামার খোঁজ খবর নিতে কায়ো আসলো না বাহে ! গরীব মানুষের খোঁজ খবর কেউ রাখে না। ধরলার পানি তেড়ে বেড়ীবাঁধ ভেঙ্গে গিয়ে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার শনিবার সকালে গিয়ে দেখাগেছে, শিমুলবাড়ী ইউনিয়নের শেখ হাসিনা সেতুর দক্ষিন সোনাইকাজী গ্রামে সাতটি বসতবাড়ী নদী গর্ভে বিলিন হয়ে গেছে। ফলে ঔই এলাকার মানুষ জন বিছিন্ন হয়ে পড়েছে উপজেলা সদর থেকে। এরই মধ্যে গত তিনদিন ধরে অবিরাম বর্ষণ ও উজান থেকে পাহাড়ী ঢলে ধরলায় তীব্র আকারে প্রবাহিত হচ্ছে পানি। পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ধরলার তীরবর্তি ফুলবাড়ী উপজেলার শিমুলবাড়ী, নাওডাঙ্গা, বড়ভিটা ও ভাঙ্গামোড়ের নি¤œাঞ্চলের সুপারী বাগান, কলা বাগান, মসজিদ, পাট ক্ষেত, ভুট্রা ও বীজতলাসহ বিভিন্ন ফসল ডুবে গেছে। শতশত পরিবার পানিতে ভেঙ্গে যাবে বলে অনেকে আশংকায় করছেন। তার উপর রাস্তার কিছু অংশ ভেঙ্গে নদীতে চলে গেছে। কাচা রাস্তাটি মেরামত করা না হলে আমরা গ্রামে অবরুদ্ধ হয়ে থাকব। এমনকি শেখ হাসিনা ধরলা সেতু’র প্রটেকশন বাঁধটি হুমকির মুখে পড়েছে। এরই মধ্যে দক্ষিন সোনাইকাজী গ্রামের হোসেন আলী (৭৫), শাহাদৎ আলী (৭০), হাসেম আলী (৫৫), মিজানুর রহমান (৬০) ও ফরিদা বেগম (৪৫) বসতবাড়ী ভিটা বাড়ী সহ ধরলার ভাঙ্গনে নদী গর্ভে চলে গেছে। তারা জানান, যে টুকু ভিটে মাটি ছিলো তাও রাক্ষুসী ধরলা নদী ক্ষেয়ে নিলো। পরিবার নিয়ে অসহায় দীনদিপাত করতেছি, এখনও কোন মেম্বার বা চেয়ারম্যান দেখতে আসেনি। মাথা গোজার ঠাঁই কোথায় পাবো কুলকিনারা খুজে পাচ্ছি না।
এ ব্যাপারে উপজেলা এ্যান ও দূযোগ পূর্নবাসন কর্মকর্তা বলেন, আপনাদের কাছে শুনলাম সরেজমিনে গিয়ে ভাঙ্গনের তালিকা করে সরকারী সুযোগ সুবিধা দেয়া হবে।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাছুমা আরেফিন জানান, নদীর পানি বৃদ্ধিতে উদ্ভুত পরিস্থিতির ওপর নজর রাখা হচ্ছে। তারপরেও বিষয়টি জেলা প্রশাসক স্যারকে জানানো হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here